চুইঝাল কি

চুইঝাল কি

চুইঝাল গাছ দেখতে অনেক টা পানের লতার মতো। পাতা লম্বা ও পুরু হয়ে থাকে । পাতায় কোন প্রকার ঝাল নেই। কিন্তু এর কাণ্ড বা লতা ডাঁটার মতো কেটে ছোট টুকরো করে মাছ-মাংস সাথে রান্না করে খাওয়া যায়। রান্নার পর এই টুকরো গুলো চুষে বা চিবিয়ে খাওয়া যায়। আজ জানবো চুইঝাল কি, কেন খাবেন, কোথায় পাবেন।

চুইঝালের ব্যবহার

চুই ঝালের কাণ্ড মাংসের মসলা হিসেবে ব্যবহার হয়। খুলনা সাতক্ষীরা, বাগেরহাট যশোর এলাকায় বিখ্যাত মসলা এই চুই ঝাল ।
চুইঝালের শিকড় , পাতা ও ফুল ,ফলে ঔষধি গুণ আছে। চুইঝাল মাছ ও মাংসের সাথে রান্না করে খাওয়া হয়। বাংলাদেশের দক্ষিণপশ্চিম অঞ্চলের জেলা খুলনা, যশোর, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট এ সব এলাকায় চুইঝাল মসলা খুব জনপ্রিয়।

চুইঝাল কি কেন খাবেন?

১) আমাদের দেশে অধিক অংশ মানুষের গ্যাস্ট্রিক সমস্যার রয়েছে এই গ্যাস্ট্রিক এর সমস্যা ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে চুইঝালের ভুমিকা অনেক।
২) খাবারের রুচি বাড়াতে এবং ক্ষুধামন্দা দূর করতে আমরা চুইঝাল খেতে পারি।
৩) পরিপাক তন্ত্রতের প্রদহ সারাতে চুইঝাল অনেক দারুন উপকারি।
৪) চুইঝাল খেলে স্নায়ুবিক উত্তেজনা ও মানসিক অস্থিরতা কমে যায়।
৫) অধিক অংশ মানুষের ঘুমের সমস্যা রয়েছে রাতে ঘুম আসে না ঘুমের ওষুধ হিসেবে চুইঝাল খেতে পারেন । এবং শারীরিক দুর্বলতা কাটাতে এবং শরীরের ব্যথা সারায় চুইঝাল আমরা নিয়মিত খেতে পারি।
৬) সদ্য প্রসূতি মায়েদের শরীরের ব্যথা দ্রুত কমাতে চুইঝাল ম্যাজিকের মতো সাহায্য করে;
৭) যাদের কাশি, কফ, হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়া ও রক্তস্বল্পতা সমস্যা রয়েছে তারা চুইঝাল খেতে পারেন।
৮) চুই ঝালের সাথে আদা পিষে খেলে সর্দি সমস্যা সমাধান হবে।

সংরক্ষণ

চুইঝাল বেশিদিন ভালো থাকে না । তাই চুইঝাল পাওয়ার সাথে সাথে কেটে ফেলতে হয় । এবং কেটে ডীপ ফ্রিজে রেখে দিলে সবচেয়ে ভালো । ডীপ ফ্রিজে ১ মাস পযন্ত রাখা যায়।
প্রতি বছর বিদেশে বিপুল পরিমান চুইঝাল রপ্তানি হচ্ছে। একই সঙ্গে চুইঝলে নানা ভেষজ গুণ থাকার কারণে অনেক রোগব্যাধির আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব হবে।

ঢাকায় চুইঝাল কোথায় পাবেন?

২০১৫ সাল থেকে আমরা চুইঝাল নিয়ে কাজ করছি। আমাদের কাছে খুলনার চুইঝাল পাবেন। আমরা খুলনা থেকে চুইঝাল এনে বিক্রি করে থাকি। আমরা প্রায় ৯০০০ মানুষকে খুলনার চুইঝাল মসলার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছি। আমাদের কাছেই অডার করলেই চুইঝাল পৌঁছে যাবে আপনার বাসায় ।
ঢাকার মধ্যে হোম ডেলিভারি দিচ্ছি আর ঢাকার বাইরে কুরিয়ারে পাঠাচ্ছি

Facebook Comments


No comments so far.

Leave a Reply